সার্চ ইঞ্জিন অপ্টিমাইজেশন কি

সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন বা এসইও কি?

আজ আমরা যে বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করবো তা হচ্ছে- সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন বা এসইও কি এবং কিভাবে এসইও করে একটি ওয়েবসাইট এর দর্শকসংখ্যা বা ভিজিটর বৃদ্ধি করা যায় অর্থাৎ একটি ওয়েবসাইটের জনপ্রিয়তা বৃদ্ধি করার জন্য এসইও করা কেন প্রয়োজন?

বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করার আগে আসুন জেনে নেয়া যাক,

সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন বা এসইও কি?

সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন যাকে সংক্ষেপে এসইও বলা হয় তা হচ্ছে, একটি ওয়েব সাইটের ওয়েবপেজ এর বিষয়বস্তু বা কন্টেন্টকে একটি নির্দিষ্ট নিয়মে প্রকাশ করা যাতে করে জনপ্রিয় সার্চ ইঞ্জিন যেমন গুগল, বিং, ইয়েন ডেস্ক, ডাক ডাক গো প্রভৃতি সয়ংক্রিয়ভাবে খুব সহজেই সেগুলো পড়তে পারে।

এতে করে ঐ সমস্ত সার্চ ইঞ্জিন গুলো নির্দিষ্ট ওয়েবপেজ থেকে প্রাপ্ত তথ্য সহজে যাচাই ও বাছাই করে প্রয়োজন মত তাদের সার্চ রেজাল্টে প্রদর্শন করে।

এসইও করা কেন প্রয়োজন বা সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন এর প্রয়োজনীয়তা কি?

সার্চ ইঞ্জিন একটি ওয়েবসাইটে প্রকাশ করা ওয়েব পেজ সমূহ তাদের প্রযুক্তি ব্যবহার করে নিখুঁতভাবে পড়ে নেয়। এরপর ঐ ওয়েব পেজ এর বিষয়বস্তু তাদের ডাটাবেজে সংরক্ষণ করে রাখে। পরবর্তীতে যদি কোন ভিজিটর সার্চ ইঞ্জিনের সার্চ অপশন ব্যবহার করে কিছু খুঁজে বের করতে চেষ্টা করে তখন সার্চ ইঞ্জিন ভিজিটর এর সার্চ করা শব্দটি তার ডাটাবেজে সংরক্ষিত তথ্যের ভাণ্ডারে খুঁজে দেখে। এতে যে ফলাফল আসে তার মধ্য থেকে সবচাইতে সামঞ্জস্যপূর্ণ ও প্রয়োজনীয় তথ্য সমৃদ্ধ ওয়েব পেজের লিংক ভিজিটরের সামনে সার্চ রেজাল্টে প্রকাশ করে।

এই তথ্য প্রকাশ করার ক্ষেত্রে সার্চ ইঞ্জিন কিছু নিয়ম অনুসরণ করে। সার্চ ইঞ্জিন শুধুমাত্র সেই তথ্যগুলোই প্রথম সারির সার্চ রেজাল্টে প্রকাশ করে যেগুলো মৌলিক লেখা। নেয়া হয়েছে একটি সুন্দরভাবে লিখিত, নকশাকৃত ওয়েবসাইট থেকে। যেখানে সুবিন্যস্তভাবে আলোচিত বিষয়গুলো দর্শকদের জন্য উপস্থাপন করা হয়েছে যাতে করে প্রতিটি ভিজিটর সহজে তার প্রয়োজনীয় তথ্য খুঁজে বের করতে পারে। সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন এর উদ্দেশ্য বা প্রয়োজনীয়তা এখানেই।

সুতরাং নিশ্চয়ই বুঝতে পারছেন, সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন এর গুরুত্ব কতটুকু। কারণ, সঠিকভাবে একটি ওয়েবপেজ এর সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন করতে পারলে উক্ত ওয়েবপেজ এ বর্ণিত তথ্য দ্রুত সার্চ রেজাল্টে আসতে সক্ষম হয়। ফলে উক্ত ওয়েব সাইটের অর্গানিক ভিজিটর বৃদ্ধি পায়।

এসইও বা সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন কিভাবে করবেন?

সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন করার জন্য যে বিষয়গুলোর প্রতি গুরুত্ব দিতে হয়, প্রথমেই তার একটি তালিকা দিচ্ছি। পরবর্তীতে ধাপে ধাপে প্রতিটি বিষয়ের উপর বিস্তারিত আলোচনা করব।

সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন এর জন্য যে বিষয়গুলোকে গুরুত্ব দিতে হয় তা নিম্নরূপঃ

১। জনপ্রিয় সমসাময়িক বিষয় নিয়ে লিখিত মানসম্পন্ন মৌলিক লেখা।
২। লেখার সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ ছবি, অডিও, ভিডিও, রেফারেন্স লিং প্রভৃতি যুক্ত করা।
৩। কিওয়ার্ড সার্চ করে জনপ্রিয় এবং সর্বাধিক গুরুত্বপূর্ণ অর্থাৎ যে সমস্ত বিষয়ের লেখাসমূহ মানুষ পড়তে পছন্দ করে বা ইন্টারনেটে অধিক মাত্রায় খুঁজে বেড়ায় তাঁর উপর ভিত্তি করে লেখার বিষয়বস্তু নির্ধারণ করা।
৪। ৬০ অক্ষরের মধ্যে বাছাইকৃত কিওয়ার্ড সমৃদ্ধ পেজ টাইটেল দেয়া।
৫। সম্পূর্ণ লেখায় কি বিষয়ে আলোচনা করা হয়েছে তার সারাংশ ১৬০ অক্ষরের মধ্যে ডেস্ক্রাইপশন মেটা ট্যাগ হিসেবে ব্যবহার করা।
৬। লেখার সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ জনপ্রিয় কিওয়ার্ড মেটা ট্যাগ ব্যবহার করা।
৭। ক্যানোনিক্যাল ইউ আর এল ট্যাগ ব্যবহার করা।
৮। যথার্থভাবে হ্যাডলাইন (h1 – h6) ব্যবহার করা।
৯। সঠিকভাবে ইমেজ অপটিমাইজেশন করা।
১০। অনপেজ লিংক বিল্ডিং।
১১। অফ পেজ লিংক বিল্ডিং।

আজ এ পর্যন্তই। পরবর্তীতে এ টিউটোরিয়াল এর ২য় সংখ্যায় উপরে উল্লেখিত বিষয়গুলো নিয়ে আলোচনা করার আশা রেখে আজকের মতো বিদায় নিচ্ছি।

প্রাসঙ্গিক লেখাটি পড়ে নিন- সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন করে ওয়েবসাইটের ভিজিটর বৃদ্ধি করার ১১টি প্রধান কৌশল

ধন্যবাদ-
সাব্বির আহমদ রাহিক

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *